ডিজায়ার ১০ প্রো ও ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইল এর ঘোষণা দিল এইচটিসি
ডিজায়ার ১০ প্রো ও ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইল এর ঘোষণা দিল এইচটিসি
এইচটিসি সম্প্রতি তাদের দুটি আলোচিত ফোন - ডিজায়ার ১০ প্রো ও ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইল এর ঘোষণা দিয়েছে।

ডিজায়ার ১০ প্রো এ আছে ৫.৫ ইঞ্চি আকারের একটি ফুলএইচডি আইপিএস ডিসপ্লে, তাতে দেয়া আছ গোরিলা গ্লাসের সুরক্ষা। তবে এইচটিসির পক্ষ থেকে এই গ্লাসের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বিস্তারিত বলা হয়নি । এই ফোনটিতে শক্তি সঞ্চার করবে মিডিয়াটেক হেইলো পি১০ চিপসেট। এতে থাকছে ৪ জিবি র‌্যাম ও ৬৪জিবি সংরক্ষণ ক্ষমতা। ডিজায়ার ১০ প্রো ব্যবহারকারী চাইলে এতে দেয়া মাইক্রোএসডি স্লটের সাহায্যে এর সংরক্ষণ ক্ষমতা প্রয়োজন অনুযায়ী বাড়িয়ে নিতে পারেন।

ডিজায়ার ১০ প্রো এর ঘোষণা দিল এইচটিসি
ডিজায়ার ১০ প্রো এর ঘোষণা দিল এইচটিসি


এর প্রধান ক্যামেরাতে আছে এফ/২.২৭.৮মিমি’র লেন্স, লেজার অটোফোকাস এবং একটি ডুয়েল-এলইডি ফ্লাশযুক্ত ২০ মেগাপিক্সেল সেন্সর। সেলফি ক্যামেরাতেও আছে ঐ একই মানের লেন্স। তবে গ্রুপ ছবি তোলার সুবিধার্থে দেয়া হয়েছে ১৫০-ডিগ্রি প্যানোরমা মোড।

সংযোগ সুবিধার কথা বলতে গেলে এতে আছে ক্যাট. ৬ এলটিই, ডুয়েল-ব্যান্ড ৫ গিগাহার্টজ/২.৪ ওয়াই-ফাই এ/বি/জি/এন (কিন্তু এসি নেই), ব্লুটুথ ভি৪.২. এনএফসি এবং এজিপিএস+গ্লোনাস। ডিজায়ার ১০ প্রো’তে দেয়া হয়েছে ৩.৫ মিমি হেডফোন জ্যাক এবং মাইক্রো ইউএসবি ২.০ পোর্ট ( তাই টাইপ-সি নেই)। ব্যবহারকারীর তথ্য সুরক্ষার জন্যে আছে একটি ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার। ফোনটির আকার ১৫৬.৫ * ৭৬ * ৭.৯ মিমি যার ভেতরে দেয়া হয়েছে একটি ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ার ব্যাটারি।

ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইল ফোনটি দেখতে অন্য ফোনটির মতোই। এর ৫.৫ ইঞ্চি আকারের ডিসপ্লেতে আছে ৭২০পিক্সেল রেজ্যুলুশন। তবে এর চিপসেটটি ডিজায়ার ১০ প্রো মতো উন্নত নয়। এতে আছে ৩জিবি র‌্যাম, ৩২ জিবি সংরক্ষণ ক্ষমতা। এর অন্য সংষ্করণটি হবে ২জিবি র‌্যাম ও ১৬ জিবি সংরক্ষণ ক্ষমতাসম্পন্ন। এতেও থাকছে একটি মাইক্রোএসডি স্লট।

ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইল এর ঘোষণা দিল এইচটিসি
ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইল এর ঘোষণা দিল এইচটিসি


ডিজায়ার ১০ লাইফস্টাইলের প্রধান ক্যামেরা ১৩ মেগাপিক্সেল এবং সামনের ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেলযুক্ত। এতে থাকছে না কোন ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার। ফোনটির আকার ১৫৬.৯ * ৭৬.৯ * ৭.৭ মিমি। অর্থাৎ লাইফস্টাইলের আকার প্রায় ১০ প্রো’র মতোই। কিন্তু ওজনের দিক থেকে এটি ১০ গ্রাম হালকা। তাতে বোঝা যায় যে, এর ব্যাটারিটির ক্ষমতা অন্য ফোনটির চেয়ে কম। এতে দেয়া হয়েছে একটি ২৭০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ার ব্যাটারি।

দুটি ফোনের স্ক্রিনকে ব্যবহারকারী নিজের পছন্দ মতো ব্যবহার করতে পারবেন। তিনি প্রচলিত আইকনগুলিতে সীমাবদ্ধ থাকতে বাধ্য হবেন না বরং নিজের পছন্দমতো অ্যাপ, স্টিকার ইত্যাদি দিয়ে স্ক্রিনটি সাজিয়ে নিতে পারবেন।