৮০ মিলিয়ন ইউনিট বিক্রি করে, ২য় প্রান্তিকের সর্বোচ্চ স্মার্টফোন বিক্রেতা স্যামাসং
৮০ মিলিয়ন ইউনিট বিক্রি করে, ২য় প্রান্তিকের সর্বোচ্চ স্মার্টফোন বিক্রেতা স্যামাসং
ক্যানালিস একটি নামী বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি তারা তাদের একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ঐ প্রতিবেদনে ক্যানালিস জানাচ্ছে যে, বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে সারা বিশ্বে ৮০ মিলিয়ন ফোন বিক্রি করে স্যামসাং সবচেয়ে বেশি স্মার্টফোন বিক্রেতার পদটি অধিকার করেছে।

ক্যানালিসের প্রতিবেদন - ৮০ মিলিয়ন বিক্রি করে স্যামাসং ২য় প্রান্তিকের সর্বোচ্চ স্মার্টফোন বিক্রেতা
ক্যানালিসের প্রতিবেদন - ৮০ মিলিয়ন বিক্রি করে স্যামাসং ২য় প্রান্তিকের সর্বোচ্চ স্মার্টফোন বিক্রেতা


টিম কাউলিং হলেন ক্যানালিসের সিনিয়র অ্যানালিষ্ট। তার ভাষায় স্যামসাং গত প্রান্তিকে তাদের গ্যালাক্সি এস৭ দিয়ে বিশ্বব্যাপি ভালো ব্যবসা করেছে। সেই সাথে ঐ সময়ে তাদের সাধারণ মানের প্রযুক্তিযুক্ত ফোন তৈরিতে মনোযোগী না হওয়া বিষয়টিও তাদের ভালো ব্যবসা করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছে। তিনি আরো বলছেন “স্যামসাং এর ভিআর প্রযুক্তি নিয়ে অগ্রসর হওয়ার সিদ্ধান্তটি একটা ভালো সিদ্ধান্ত ছিল, সেই সাথে গিয়ার ভিআর যুক্ত ফ্ল্যাগশীপ হ্যান্ডসেটটি তাদের মোট বিক্রি বৃদ্ধিতে যথেষ্ট প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছে।”

দক্ষিণ কোরিয়ার এই কোম্পানির পরের স্থানটি দখল করেছে অ্যাপেল। অ্যাপেল গত প্রান্তিকে মোট ৪০.৪ মিলিয়ন আইফোন বিক্রি করে ঐ অবস্থানটিতে পৌঁছেছে। ক্যানালিস এর অন্য একজন গবেষক বলছেন, “ অ্যাপেলের ভাগ্য পরিবর্তনে আইফোন এসই এর অবদান খুবই সামান্য।”

সবচেয়ে বেশি স্মার্টফোন বিক্রির তালিকার ৩য় স্থানটি অধিকার করেছে চীনের হুয়েই। তারা বিক্রি করেছে ৩১ মিলিয়ন ফোন। হুয়েই সম্পর্কে কাউলিং এর মন্তব্য, “ ২০১৬ তে হুয়েই যাত্রা খুবই ভালো হয়েছে, চীনের বাজারে শীর্ষস্থান অধিকার করার বিষয়টি তাদের বিশ্বচিত্রে ভালো অবস্থান এনে দিয়েছে।” তবে হুয়েই এর জন্যে তার পরামর্শমূলক সর্তকবার্তাও আছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, “যদিও তাদের যাত্রাটা ভালো, তবে তাদের পন্য বাজারজাত করার রেকর্ড ভেঙে এগিয়ে যেতে হবে এবং আমেরিকার বাজারে তাদের অবস্থান ভালো হবে যদি তারা তাদের বার্ষিক ১৪০ মিলিয়ন ফোন বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে যেতে পারে।”